1. news.ajkerkontho@gmail.com : Ajker Kontho : Ajker Kontho
  2. multicare.net@gmail.com : আজকের কন্ঠ :
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সালথা উপজেলায় কমিউনিস্ট পার্টির কর্মি সভা অনুষ্ঠিত ফারিয়ার উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত সালথায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত মধুখালীর কোরকদি ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্ব ও কর্তব্য বিষয়ে অবহিতকরণ কর্মশালা বোয়ালমারীতে ইউনিয়ন পর্যায়ে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) স্থানীয়করণ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত নিয়ামতপুরে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা পিতার লাশ বাড়িতে রেখেই অশ্রু জলে বুক ভাসিয়ে পরীক্ষার হলে ছেলে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ.লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোট চেয়ে কাঁদলেন ভাঙ্গা উপজেলা সিপিপির বর্ধিত সভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত বোয়ালমারীতে জনপ্রতিনিধিদের সাথে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

সালথায় একমাস ধরে নিখোঁজ ৮০ বছরের বৃদ্ধ বাবা: খোঁজ নিচ্ছে না সন্তানরা!

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২
সত্য প্রকাশে নির্ভীক
নুরুল ইসলাম, বিশেষ প্রতিনিধিঃ সন্তানরা ঠিকমত দেখভাল না করায় একবুক কষ্ট আর হতাশা নিয়ে গত ৭ জুলাই ডাক্টার দেখানোর কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন ৮০ বছর বয়সি মো. মজু ফকির। এখন পর্যন্ত তিনি আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। তার রয়েছে একঝাঁক সন্তান। তবে এতদিনে খোঁজখবর নেয়নি তারা। এমনকি তার সন্ধ্যান চেয়ে থানায় একটি সাধারন ডায়রিও করেনি কোন সন্তান। সব শেষে রবিবার (৭ আগস্ট) এক মেয়ে তার খোঁজে বের হলে বিষয়টি জানাজানি হয়। হতভাগা এই বৃদ্ধ ফরিদপুরের সালথা উপজেলার মাঝারদিয়ার মুরাটিয়া গ্রামের মৃত সিলামত ফকিরের ছেলে। ঘটনাটি নিয়ে ইতিমধ্যে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

মো. মজু ফকিরের প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, ছয় সন্তান রয়েছে মজু ফকিরের। এরমধ্যে ৪ জন মেয়ে আর দুই জন ছেলে। মেয়ে ফাতেমা বেগম, আফরুজা বেগম, শিউলি বেগম ও রেখা বেগম। তাদের সবারই বিয়ে হয়ে গেছে। তারা স্বামীর বাড়িতে সংসার করছেন যার যার মত। আর ছেলে বাবলু ফকির ও রবিন ফকির। তারাও বিয়ে করে আলাদা সংসার করছেন। এরমধ্যে বড় ছেলে বাবলু ফকির দেশের বাহিরে থাকেন ৪ বছর ধরে। তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বাবার বাড়ি নগরকান্দায় থাকেন।সন্তানরা উপার্জনক্ষম হয়ে যার যার মত সংসার নিয়ে সুখে-শান্তিতে চলতে থাকলেও যেই বাবা-মা তাদের আদর-ভালবাসা আর ভরণ-পোষণ দিয়ে বড় ও যোগ্য করে গড়ে তুলেছেন, বয়স ভারি হওয়ার পর সেই বাবা-মায়ের দেখভাল করতেন না তারা। তাই বাধ্য হয়েই বৃদ্ধ বয়সে মজু ফকির তার স্ত্রী নিছা বেগমকে নিয়ে আলাদা খেতেন। কিন্ত দুর্ভাগ্যক্রমে এক বছর আগে মারা যান মজুর স্ত্রী নিছা। এরপরও সন্তানরা কেউ মজুর দেখভালের দায়িত্ব নেওয়ার আগ্রহ দেখায়নি। একপর্যায় সামাজিক চাপে ছোট ছেলে রবিন তার দায়িত্ব নেন। তবে কিছুদিন পর ঠিকমত তাকে ভাত-কাপড় দিতেন না। অবহেলা-অযতেœর কারণে ক্ষোভ আর হতাশা নিয়ে একমাস আগে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় মজু। আর বাড়িতে ফেরেনি। শেষ বয়সে নাতী-নতনীদের নিয়ে আনন্দ-উল্লাসে দিন কাটানো কথা থাকলেও তা আর তার কপালে জুটেনি।

নিখোঁজ মজুর মেয়ে রেখা বেগম অভিযোগ করে বলেন- আমার ভাইয়েরা বাবাকে ঠিকমত ভাত-কাপড় দিতেন না। আমরা বোনেরা যার যার মত স্বামী বাড়িতে সংসার করছি। আমরা তো সেইভাবে তার খেয়াল রাখতে পারিনি। মা মারা যাওয়ার পর বাবা ছোট ভাই রবিনের মধ্যে থাকতেন। তবে সেও ঠিকমত দেখভাল করতেন না। তাই আমার বাবা হতাশা আর ক্ষোভ নিয়ে ডাক্টার দেখানোর কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় একমাস আগে। এরপর আর ফিরে আসেনি। আমি থানায় একটি সাধারন ডায়রি করতে গেলে পুলিশ আমার ভাইকে নিয়ে আসতে বলে। কিন্তু আমার ভাই থানায় যাবে না বলে জানিয়ে দেয়। এমনকি খোঁজখবরও নিবে না বলে জানায়। পরে আমি আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে খোঁজখবর নিয়েও বাবার কোনো সন্ধান পায়নি।

তবে বড় ছেলে বাবলু ফকির বিদেশে থাকায় তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভবত হয়নি। আর ছোট ছেলে রবিনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মুরাটিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও মাঝারদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. আফছার রউদ্দীন মাতুব্বর বলেন, বিষয়টি জানার পর আমি মজু ফকিরের বাড়িতে গিয়েছিলাম। তবে গিয়ে তার ছেলে রবিনকে বাড়িতে পায়নি। খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারলাম সে রাগ করে বাড়ি থেকে বের হয়ে গেছে। তার কোন খোজ-খবর পাওয়া যাচ্ছে না। কি কারণে বাড়ি থেকে গেছে, সে বিষয় ভাল করে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেব।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

error: Content is protected !!