1. news.ajkerkontho@gmail.com : Ajker Kontho : Ajker Kontho
  2. multicare.net@gmail.com : আজকের কন্ঠ :
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শ্রমিকদের যাতায়াতের পথ উন্মুক্ত করা ও এসিড কারখানা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ব্রয়লার ও ডিমের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি রোধে জেলা ভোক্তা অধিদপ্তরের বাজার অভিযান নিয়ামতপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের আলোচনা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল নিয়ামতপুরে দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদ পথচারীকে রক্ষা করতে নিজেই না ফেরার দেশে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কারাগারে সহিংস তান্ডবের মামলায় যুবলীগের সভাপ‌তি গ্রেফতার উপজেলা এবং ইউপি পরিষদের নিয়মিত ওয়েব পোর্টাল হালনাগাদ করার হুশিয়ারি দেন — জেলা প্রশাসক ডিমসহ নিত্যপণ্যের দোকানে জেলা ভোক্তা অধিদপ্তরের অভিযান প্লাস্টিক কারখানায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

বাড়ীকে নাল দেখিয়ে জমি রেজিস্ট্রি সরকারের রাজস্ব ফাঁকি প্রায় দুই লক্ষ টাকা

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০২২
সত্য প্রকাশে নির্ভীক

ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের মধুখালী সাব রেজিস্ট্রি অফিসে বিএস রেকর্ডে থাকা বাড়ি শ্রেনী জমিকে নাল জমি দেখিয়ে নিবন্ধন করা হয়েছে, এতে করে সরকারের ১ লক্ষ ৯০ হাজার ৭শত চল্লিশ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়েছে।

বিগত ২৬/৮/২০২১ইং তারিখে উপজেলার ৬৬নং গোন্দারদিয়া মৌজার বিএস ৯২২নং খতিয়ানের বিএস ৩৬৪ ও ৬৪৮ দাগের ২৮ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি হয় যার দলিল নং ২৭২৮। জমিদাতা ১২ জন তারা হলেন, অসোক কুমার পোদ্দার, অপূর্ব কুমার পোদ্দার, অরুন কুমার পোদ্দার, নিশিথ কুমার পোদ্দার, শিশির কুমার পোদ্দার, উত্তম কুমার পোদ্দার, বিধান কুমার পোদ্দার, বিপুল কুমার পোদ্দার, প্রলয় পোদ্দার, সুমন পোদ্দার, সূবর্নার পোদ্দার, কৃষ্ণ পোদ্দার, জমি গ্রহিতা দুইজন তারা হলেন, সাজিদুল ইসলাম।

কাগজপত্র অনুযায়ী দেখা যায় ঐ দাগ দুটি বিএস রেকর্ডে জমির শ্রেনী হিসেবে বাড়ি রয়েছে এবং খাজনার দাখিলায়ও জমির শ্রেনী বাড়ী লিপিবদ্ধ আছে। কিন্তু জমি সরকারী কর ফাঁকি দেওয়ার উদ্দেশ্য জমির শ্রেনী বাড়ি না লেখে নাল দেখানো হয়েছে। এতে করে সরকার ১,৯০,৭৪০ টাকার রাজস্ব কম পেয়েছে। উক্ত মৌজায় জমির সরকারী মূল্যে আছে বাড়ীর ক্ষেত্রে ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা আর নাল জমির মুল্যে ৮৭ হাজার টাকা। যদি দলিলে বাড়ী দেখানো হতো তাহলে ২৮ শতাংশ জমির মূল্যে আসে ৪৯ লক্ষ টাকা এতে সরকারের রাজস্ব আসে ৪,১৬,৫০০ টাকা। জমি নাল দেখিয়ে মুল্যে দেখানো হয়েছে ২৬,৫৬,৬০০ টাকা। এখানে যদি বাড়ী লেখা হত তাহলে সরকারী রাজস্ব আসতো ৪,১৬,৫০০ টাকা কিন্তু নাল লেখার কারনে মূল্যে কমে যাওয়ায় সরকারী রাজেস্ব আসে ২,২৫,৭৬০ টাকা এতে সরকারের রাজেস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়েছে ১,৯০৭৪০ টাকা।

এ বিষয়ে মধুখালী উপজেলাধীন রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক সমিতির সাধারন সম্পাদক শফি খান বলেন, রেকর্ডে জমির শ্রেনী যা থাকবে দলিলেও তাই লেখতে হবে, তা না হলে ধরে নিতে হবে এখানে অনিয়ম হয়েছে।

উক্ত দলিল লেখক শাহিন বিশ্বাস বলেন, জমিদাতা ও গ্রহিতা যে কাগজপত্র দিয়েছে আমরা সেভাবে লিখেছি। এটা ভুল হয়েছে অফিস থেকে আমাকে বলেছে ঐ পাটিকে ডেকে বাকি রাজস্ব আদায় করতে, আমরা আদায় করে দিবো।

এ বিষয়ে মধুখালী সাব রেজিষ্টার শারমীন সুলতানা এই প্রতিবেদককে বলেন, বিষয়টি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। এই দলিলটি আমার মাধ্যমে হয়েছে। এখানে রাজস্ব ফাঁকি হয়েছে। আমরা নোটিশ দিয়ে বাকি টাকা আদায় করে নিবো।

জেলা সাব রেজিষ্টার আলী আকবর এই বিষয়ে বলেন, এই ধরনের কিছু হয়ে থাকলে সেটা নিয়ম বহির্ভুত হয়েছে রেকর্ডে যে শ্রেনী আছে দলিলেও তাই লিখতে হবে। কোন অনিয়ম হলে বিষয়টি খতিয়ে দেখবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

error: Content is protected !!