1. news.ajkerkontho@gmail.com : Ajker Kontho : Ajker Kontho
  2. multicare.net@gmail.com : আজকের কন্ঠ :
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
স্কুল ছাত্রীর লাশ তালাবদ্ধ বাথরুম ভেঙে উদ্ধার আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে চাঁদাবাজি, আটক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী সালথায় যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ফরিদপুর আঞ্চলিক কেন্দ্রের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন জাতির পিতাকে হত্যার পর তার নাম মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল- লাবু চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদারের শোক বাণী মেয়ের প্রেম লীলায় মা না ফেরার দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় দম্পতির প্রাণ গেল জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সালথার দলীয় নেতাদের সাথে মতবিনিময় করলেন লাবু চৌধুরী

বিদ্যালয় মাঠে গরু-ছাগলের হাট: ৩২ বছর পর বন্ধ করলেন প্রশাসন

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২
সত্য প্রকাশে নির্ভীক
সালথা প্রতিনিধি: অবশেষে ফরিদপুরের সালথা উপজেলা সদরে অবস্থিত সালথা সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে গরু-ছাগলের হাট বসানো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। টানা ৩২ বছর পর বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষকের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেন প্রশাসন। পাশাপাশি কোরবানী ঈদের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অস্থায়ী পশুর হাটের জন্য বিদ্যালয়ের পাশে পরিত্যক্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মাঠ ব্যবহারের নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।
জানা গেছে- উপজেলার মধ্যে সব চেয়ে বড় পশুর হাট সালথা বাজারের পাশে বিদ্যালয়ের এই মাঠে বসে। পাট-পেঁয়াজ আর পশুর হাটের কারণেই প্রতিবছর ৬০ থেকে ৮০ লাখ টাকা দিয়ে সালথা বাজার ইজারা নেয় ইজারাদাররা। গত আড়াই যুগ ধরে এই মাঠে পশুর হাট বসিয়ে গরু-ছাগল বিক্রি করে আসছিল সংশ্লিষ্টরা।

বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলেও কেউ কোন পদক্ষেপ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এমনকি বর্তমান ইউএনও গত নয় মাস ধরে সালথায় যোগদান করলেও তিনিও কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছিলেন না। কোরবানী ঈদ সামনে রেখে হঠাৎ পশুর হাট বন্ধ করায় ইজারাদাররা কিছুটা বিপাকে পড়লেও খুশি হয়েছেন বিদ্যালয় শিক্ষক-শিক্ষর্থীরা। তারা বিদ্যালয়ের সুশৃঙ্খল পরিবেশ ফিরে পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান বলেন- ৩২ বছর ধরে আমাদের বিদ্যালয় মাঠে গরু-ছাগলের হাট বসানো হয়েছে। এতে বিদ্যালয় মাঠটি সব সময় নোংরা পরিবেশ হয়ে থাকতো। যেকারণে একদিকে পড়ালেখার পরিবেশ নষ্ট হতো, অন্যদিকে মাঠে ঠিকমত খেলাধুলা করতে পারতেন না শিক্ষার্থীরা। করোনাকালীন সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাও মুসকিল হয়ে পড়েছিল। আমি মাঠ থেকে পশুর হাট সরানোর জন্য অনেকবার উদ্যোগ নিয়েছি। কিন্তু পারিনি। একপর্যায় হাট সরানোর বিষয় নিয়ে আমরা শিক্ষকরা গত শনিবার ইউএনওর কার্যালয়ে তার উপস্থিতিতে সালথা বাজার কমিটি ও ইজারাদারদের নিয়ে আলোচনা করি। পরে ইউএনওর নির্দেশে তার বরাবর বিদ্যালয় মাঠ থেকে পশুর হাট সরানোর দাবি জানিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দেই।

সালথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: তাছলিমা আকতার সাংবাদিকদের বলেন- বিদ্যালয় মাঠে পশুর হাট বসানো কোনোভাবেই কাম্য নয়। শুক্রবার সকালে জানতে পারি যে সালথা সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে পশুর হাট বসেছে। বিষয়টি আগে আমাকে প্রধান শিক্ষক অবগত করেননি। শনিবার দুপুরে স্কুল পরিদর্শন করে মাঠের পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটার বিষয়টি পর্যক্ষেণ করে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়। পরে শিক্ষকমন্ডলী, হাট কমিটি ও হাটের ইজারাদারদের সাথে আলোচনা করে বিদ্যালয় মাঠ থেকে পশুর হাট বসানোর বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এরপ্রেক্ষিতে সালথা থানার ওসি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন।

তিনি বলেন-কোরবানী ঈদের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অস্থায়ী পশুর হাটের জন্য বিদ্যালয়ের পাশে পরিত্যক্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মাঠ ব্যবহারের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সালথা হাটের ইজারাদার মো. রাকিবুল হাসান জুয়েল বলেন- অনেক বছর ধরে সালথা সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে পশুর হাট বসে আসছিল। ইউএনও আমাকে তার কার্যালয় ডেকে নিয়ে মাঠে পশুর হাট বসাতে নিষেধ করেন। পরে আমি আর স্কুল মাঠে পশুর হাট বসতে দেয়নি।

নুরুল ইসলাম
সালথা, ফরিদপুর

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

error: Content is protected !!