1. alamgirfpur@gmail.com : Alamgir Hossen : Alamgir Hossen
  2. jakirsaltha@gmail.com : Jakir Hosen : Jakir Hosen
  3. rjillur86@gmail.com : Jillur Rahman : Jillur Rahman
  4. ridoyshil2525@gmail.com : Ridoy Shil : Ridoy Shil
  5. multicare.net@gmail.com : আজকের কন্ঠ :
বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঈদ উপলক্ষে মহাসড়কে যানজট মুক্ত রাখার জন্য করিমপুর হাইওয়ে থানার বিভিন্ন পদক্ষেপ একশত বোতল ফেনসিডিলসহ আটক ২ যুবক কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচি হিসেবে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ টিসিবির পণ্য সামগ্রী বিক্রয় কর্মসূচি চলছে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে আর্থিক সহায়তা ও চাল বিতরন তিন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও পত্রিকার সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন সড়ক অবরোধ খাদ্যের সন্ধানে লোকালয়ে মুখপোড়া হনুমান যুবককে কুপিয়ে হত্যা করল দুর্বৃত্তরা ফরিদপুরে ইউনিয়ন ওয়ার্ড পর্যায়ে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট স্থানীয়করণ অনুশীলন অনুষ্ঠিত বিদ্যালয় মাঠে গরু-ছাগলের হাট: ৩২ বছর পর বন্ধ করলেন প্রশাসন

পদ্মা সেতু চালু হলে সুদিন ফিরবে সালথার পাট-পেঁয়াজ চাষি ও ব্যবসায়ীদের

Rabiul Hasan Rajib
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৭ জুন, ২০২২
সত্য প্রকাশে নির্ভীক
নুরুল ইসলাম, বিশেষ প্রতিনিধি: আগামী ২৫ জুন স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হবার কথা। উদ্বোধনের পর পদ্মা সেতু চালু হলে অন্যান্য এলাকার মত সুদিন ফিরবে ফরিদপুরের সালথা উপজেলার পাট-পেঁয়াজ চাষি ব্যবসায়ীদের। পদ্মা সেতুর প্রভাবে বদলে যাবে এখানকার কৃষি অর্থনীতি। লাভবান হবে ট্রাক মালিকেরা। পাট-পেঁয়াজ আবাদে দেশের মধ্যে ফরিদপুর অন্যতম। আর ফরিদপুরের মধ্যে অন্যতম হলো সালথা উপজেলা। যেকারণে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন এখানকার পাট-পেঁয়াজ চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

সোমবার উপজেলার কয়েকজন পাট-পেঁয়াজ চাষি ও ব্যবসায়ীর সাথে আলাপকালে তারা জানান- পদ্মা সেতু চালু হলে সালথার প্রধান অর্থকরী ফসল সোনালী আঁশ পাট আর পচনশীল মসলা জাতীয় পেঁয়াজ নিয়ে টেনশনের দিন শেষ হয়ে যাবে। কারণ আগামী মৌসুম থেকে পাট ঘরে রেখে ঈদুরের উৎপাত সহ্য করতে হবে না। আবার পেঁয়াজ ঘরে রাখার কারণে পচনও ধরবে না। পাট ঈদুরে কাটার আগেই আর পেঁয়াজ পচে যাওয়ার আগেই তা স্বপ্নের পদ্মা সেতু দিয়ে যানজট আর ভোগান্তী ছাড়াই রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে অনায়াসে পৌঁছে যাবে। এতে খরচও হবে অনেক কম। পদ্মা সেতুর কারণে প্রতিবছর অর্ধশতকোটি টাকা বেঁচে যাবে ধারনা তাদের।স্থানীয় পাট-পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানান- বিশেষ করে এখানকার পেঁয়াজের গাড়ি মাত্র দুই ঘন্টার মধ্যে পদ্মা সেতু দিয়ে রাজধানীতে ঢুকে যাবে। ফলে কেউ আর কম দামে পেঁয়াজ বাজারজাত করার সুযোগ পাবে না বা পচে নষ্ট হওয়ার আশঙ্কাও থাকবে না। এতে প্রতিমণ পেঁয়াজে ৫০ থেকে ৬০ টাকা পর্যন্ত বেশি পাবে প্রান্তিক কৃষকেরা। তাদের মুখে ফুটবে হাঁসি। তারা পেঁয়াজ আবাদে আরও উৎসাহী হবে। একইভাবে পদ্মা সেতু দিয়ে পাটের গাড়িও দেশের বিভিন্নস্থানে কম সময়ের মধ্যে পৌঁছে যাবে। তাতেও নানাভাবে বেঁচে যাবে অর্থ।

উপজেলার ভাওয়াল গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. মনির মোল্যা, পাট-পেঁয়াজ চাষি সিরাজ মোল্যা ও সরোয়ার মোল্যা বলেন- সালথার পাট-পেঁয়াজ বাজারজাত হয় সারাদেশে। বিশেষ করে পেঁয়াজের গাড়ি রাজধানীতে পৌঁছাতে চরম সমস্যা হয়। গাড়ি নিয়ে মাওয়া আর পাটুরিয়া ঘাটে দিনের পর দিন যানজটে পড়ে থাকতে হয়। এতে একদিকে বেড়ে যায় অতিরিক্ত খরচ অন্যদিকে আশঙ্কা থাকে পেঁয়াজ পচে যাওয়ার। পদ্মা সেতু চালু হলে অতিরিক্ত খরচ হবে না, পেঁয়াজ পচার ভয়ও থাকবে না। তারা আরও বলেন- কম খরচে পদ্মা সেতু দিয়ে দেশের বিভিন্নস্থানে থাকা মিল-কারখানায় পাট দ্রুত সময়ের মধ্যে পৌঁছে যাবে। মাওয়া-পাটুরিয়া ঘাটে পাটের গাড়ি নিয়ে ভোগান্তী পোহাতে হবে না।

সালথা বাজারের পাট-পেঁয়াজের বড় ব্যবসায়ী মোসারফ তালুকদার ও লেবু মোল্যা বলেন- আমাদের স্বপ্নের পদ্মা সেতু চালু হলে সব চেয়ে বেশি বাঁচবে সময় আর খরচ। পাট-পেঁয়াজের গাড়ি নিয়ে ঘাটে গিয়ে আর বসে থাকতে হবে না। গাড়ির ড্রাইভারকে ডাবল বেতনসহ বাড়তি খরচের টাকা দিতে হবে না। এতে পাট-পেয়াজের প্রতি গাড়িতে বাঁচবে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা। ট্রাকের মালিকেরাও লাভবান হবে। প্রতিদিন একটি ট্রাক ২-৩ টি করে টিপ মেরে মালিককে ডাবল আয় করে দিতে পারবে। তাতে গড়ে সালথার চাষি আর ব্যবসায়ীদের অর্ধশতকোটি টাকা বাঁচবে।

সালথা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জীবাংশু দাস বলেন- পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের মাধ্যমে এই অঞ্চলের কৃষিপণ্য পরিবহনে নবদিগন্তের উম্মোচন হবে। কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য পাবেন। অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ ও যানজট ইত্যাদি নানা কারণে বর্তমানে পণ্য পরিবহনে দীর্ঘ সময় লাগে। খরচও বাড়ে। তাই তাদের কৃষিজাত পণ্য বাজারজাত করতে সমস্যা হয়। সঠিক সময় বাজারজাত করতে না পারার কারণে কখনো কখনো কৃষিজাত পণ্য পচে যায়। পদ্মা সেতু চালু হলে কৃষিপণ্য পরিবহনে সময় আর খরচ দুই-ই কমবে। ফলে কৃষক ন্যায্যমূল্য পাবেন। আর সঠিক মূল্য পেলে কৃষক বিভিন্ন ধরনের ফসল উৎপাদনে আরও বেশি উদ্বুদ্ধ হবেন। এর মধ্যদিয়ে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের ধারা অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
error: Content is protected !!