1. news.ajkerkontho@gmail.com : Ajker Kontho : Ajker Kontho
  2. rjillur86@gmail.com : Jillur Rahman Russell : Jillur Rahman Russell
  3. sklablu6580@gmail.com : Lablu Shek : Lablu Shek
  4. multicare.net@gmail.com : আজকের কন্ঠ :
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন

আশ্রয়ন প্রকল্পের রাস্তা নেই যাতায়াতের

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২৩

মোঃ ইনামুল খন্দকার, বিশেষ প্রতিনিধিঃ ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলায় চলাচলের রাস্তা না থাকায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে দেওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরের উপকারভোগী ব্যক্তিরা দুর্ভোগ ও ভোগান্তিতে পড়েছেন। তাঁরা এখন প্রকল্পসংলগ্ন বিভিন্ন ফসলি জমির ওপর দিয়ে যাতায়াত করছেন।

এ ভোগান্তি থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছেন উপকারভোগী ব্যক্তিরা। উপজেলার মেগচামী ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামে এই আশ্রয়ণ প্রকল্পটি অবস্থিত।
উপজেলা প্রশাসন ও গুচ্ছগ্রামের উপকারভোগী ব্যক্তিদের সূত্রে জানা যায়, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে আশ্রয়ণ প্রকল্পের (তৃতীয় পর্যায়) আওতায় উপজেলার মেগচামী ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামে ২৮ শতাংশ  জমিতে ১৪টি পরিবারকে দুই কক্ষবিশিষ্ট আধাপাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়। ২০২১ সালের জুনে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ঘর হস্তান্তর করা হয়। বর্তমানে এই গুচ্ছগ্রামে ষাটজন মানুষ বাস করেন। আশ্রয়ণ প্রকল্পের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ, পানি, শৌচাগার ও রান্নাঘরের সুবিধা রয়েছে। কিন্তু গুচ্ছগ্রাম থেকে মূল সড়কে যাওয়ার কোনো রাস্তা নেই। ফলে গুচ্ছগ্রামে বসবাসকারী মানুষ আশপাশের  ও ফসলি জমির ওপর দিয়ে যাতায়াত করছেন। প্রায়ই সেসব জমির মালিকেরা তাঁদের চলাচলে বাধা দেন ও গালমন্দ করেন। ফলে গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দারা তাঁদের চলাচলে বিড়ম্বনা, দুর্ভোগ ও ভোগান্তি পোহাচ্ছেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মেগচামী ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামে আশ্রয়ন প্রকল্পের চারপাশে ফসলি জমির পাশ দিয়ে বাঁশের ও কাটা দিয়ে বেড়া দেওয়া পশ্চিম পাশে ১০ শতাংশ খাস জমি চাষ করছে ইরফান মৃধা নামে এক ব্যক্তি তিনি সেই জমিতে ফসল উৎপাদন করছে এবং বাঁশের বেড়া দিয়ে রাখছে চলচলের রাস্তা না থাকায় আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের অন্য ফসলি জমির মধ্য দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে এতে করে আশ্রয়নে বসবাসকারীদের গালমন্দ শুনতে হচ্ছে নিয়মিত ও প্রতিবন্ধকতা মধ্যে তাদের গুচ্ছ গ্রামে যেতে হচ্ছে। এসময় মেগচামী ইউনিয়নের কালিনগর আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা নিত্য বলেন, আমি সেলুনে কাজ করি প্রতিদিন আমার কাজের উদ্দেশ্যে বাইরে বেড়োতে হয় অন্যের ফসলের জমির মধ্য দিয়ে আসা যাওয়া করলে জমির মালিকেরা গালাগালি করে আমাদের খুব সমস্যা আমরা দ্রুত রাস্তা চাই, এই রাস্তার জন্য আমরা সাত মাস আগে উপজেলা প্রশাসন বরাবর লিখিত আবেদনও করেছি এখনো আমাদের রাস্তা হলো না।
আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা পঙ্গু রফিক বলেন, আমি একজন পঙ্গু মানুষ আমার ভ্যান গাড়িতে বসে চলাচল করতে হয় আমি কিভাবে ঘরে যাবো আমাদের দ্রুত রাস্তার ব্যবস্থা করে দেওয়া হোক। আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের মধ্যে মোছাঃ পাতারি, জাহেদা, সালমা ও রহিম তারা বলেন, আমাদের ঘর উপহার দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী আমরা এতে খুব খুশি তবে আমাদের রাস্তা ঘাট না থাকায় আমরা এখন জেলখানার মতো অবস্থায় বসবাস করছি, আমরা দ্রুত রাস্তার চাই। এ বিষয়ে মধুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, আশ্রয়ন প্রকল্পের পশ্চিম পাশে সরকারী ১০ শতাংশ খাস জমি রয়েছে তবে পুরো রাস্তার জন্য আরো ২ শতাংশ জমি দরকার কিন্তু জমির মালিক জমির যে বাজার মূল্য তা থেকে ডাবল মূল্য দাবি করছে, আমরা শিগগিরই জমির মালিকের সাথে কথা বলে রাস্তার ব্যবস্থা করে দিবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট
error: Content is protected !!